রসুনের উপকারিতা। রসুন খাওয়ার নিয়ম 2022

রসুনের উপকারিতা হলো : রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে , রক্ত সঞ্চালন বড়ায় , উচ্চ রক্ত চাপের মতো বিপদজনক রোগ থেকে মুক্তি পেতে রসুনের ভূমিকা অপরিসীম । সংক্রমণ প্রতিরোধে , রক্ত পরিশোধিত করতে এবং ত্বক ভালো রাখতে রসুনের অবদান রয়েছে । তাই রান্নার সময় অবশ্যই রসুন ব্যাবহার করার অভ্যাস করতে হবে । এছাড়াও রসুন খাবারের সাদ বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে ।

উচ্চ রক্ত চাপ : আমাদের শরীলে এলডিএল বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে রক্তচাপ এর মাত্রা বৃদ্ধি পেতে থাকে । উচ্চ রক্তাচাপ কমানোর জন্য আপনি প্রতিদিনি ২ কোয় রসুন খেতে পারেন, প্রতিদিন সকাল বেলা খালি পেটে ।

হাড়ের শক্তি: হাড়ে শক্তি বাড়াতে রসুনের সাহায্য নিতে পাড়েন । ইষ্ট্রোজেনের মাত্রা যাদের কম থাকে তাদের জন্য রসুন অনেক উপকার আসে কারন রসুন খেলে আপনার ইষ্ট্রোজেনের মাত্রা বৃদ্ধি পাবে এবং হাড় মজবুত হবে ।


নারিদের মেনোপোজ হয়ে যাওয়ার পরও রসুন খেলে অনকে ভালো ফলাফল পাওয়া যায় ।

শরীলের ত্বক : শরীলেরর ত্বক ভালো রাখতে রসুনের উপকারিতা রয়েছে । রসুন খাওয়ার কিছু নিয়ম রয়েছে । আপনি যদি প্রতিদিন খালি পেটে ২ কোয় রসুন খেতে পাড়েন তাহলে আপনার ত্বক অনেক সুন্দর হবে ।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে রসুনের ভূমিকা : রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে রসুন সহায়তা করে থাকে সর্বদা কারন রসুনে রয়েছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়ারল এবং অ্যান্টি ফাঙ্গাল যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহযোগিতা করে থাকে ।

রক্তের শর্করা সাভাবিক : রক্তের শর্করার মাত্রা সাভাবিক রাখতে আপনি প্রতিদিনি সকালে রসুন খেতে পাড়েন ।

এছাড়াও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনেও রসূনের ভুমিকা রয়েছে ।

ছত্রাকের আক্রমণ রোধ : আপনার হাত পায়ের আঙ্গুলের মাঝ খানে গাও দেখা যায় যা ছত্রাকের আক্রমনের কারনে হয়ে থাকে । আপনি যদি প্রতিদিনি রসুন খেয়ে যান তাহলে এই সব রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন ।

দাতের ব্যাথা : আমরা অনেক সময় দাতের যন্ত্রনায় ভোগি । এই যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে আপনি নিয়মিত রসুন চিবিয়ে খেতে পারেন । তাহলে দাতের যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পাবেন ।

হজমে সহায়তা : রসুনের যেসব উপাদাান রয়েছে তা হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে ।

শুধু তাই নয় রসুন ক্যান্সার প্রতিরোধ করতেও সহায়তা করে থাকে ।

রসুন খাওয়ার উপকারিতা

রসুন খাওয়ার উপকারিতা
রসুন খাওয়ার উপকারিতা

রসুন খাওয়ার উপাকরিতার মধ্যে রয়েছে শরীলের ক্লান্ত ভাব দূর করা। আমরা অল্পকাজ করেই ক্লান্ত হয়ে যাই । তাই রসুন খেলে অল্পতে ক্লাান্ত ভাব দূর হয়ে যাবে । রসুনের উপকারিতা আসলে আমাদের মানব শরীলের জন্য একটি অমূল্য সম্পদ ।

আপনার যখন সর্দি-কাশি , ঠন্ডা লাগে তখন আপনি রসুন খেতে পাড়েন চা এর সাথে তাহলে আপনার ঠান্ডা দূর হয়ে যাবে । এছাড়াও আপনার কাশ , কফ দূর করতে রসূন চাবিয়ে খেতে পাড়েন । এতে করে আপনার গলা পরিষ্বার হবে ।

একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো আমাদের শরীলের দূষণ মুক্ত করা । আমরা সকলেই জানি দূষন সব জায়গায় রয়েছে এবং এই দূষণ আমরা প্রতিনিয়ত দূর কত চাই । ঠিক তেমনি রসূন আমাদের শরীলের এই দূষণ দূর করতে সহায়তা করবে ।

রসুনে বিভিন্ন উপাদান সমূহের নাম : ম্যাঙ্গািনজ, তামা, ফসফরাস, পটািসয়াম, আয়রন, প্রিটন ইত্যাদি সকল উপাদান বিদ্যমান রয়েছে বলে রসুন এর এতো উপকারীতা। রসুনের এই সমস্ত উপাদান আমাদের শরীলের বিভিন্ন কার্যকলাপে অংশ গ্রহন করে আমাদের সুস্থ থাকতে সহায়তা করে।

  • রসুন আমাদের রক্তের কোলেস্টেরল এর মাত্রা কম করতে সাহায্য করে

  • উচ্চ রক্তচাপ দূর করতে সহায়তা করে রসুন

  • রসুন করনারি ধমনির রোগকে সাভাবিক করতে সহায়তা করে

  • রসুনে প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম এবং অল্প পরিমানে ভিটামিন সি থাকে।

  • কৃমি নাশক হিসাবে রসুন ব্যাবহার করা হয়ে থাকে

  • যাদের দ্রুত চুল পেকে যায় তাদের কে এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণের জন্য প্রতিদিন খালি পেটে ২ কোয়া রসুন খেতে হবে তাহলে খুব দ্রুত ফলাফল পাওয়া যাবে

আামাদের হাড়ের বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি পেতে রসুন সহায়তা করে

রসুন খাওয়ার নিয়ম

রসুন খাওয়ার নিয়ম গুলো নিম্নে আলোচনা করা হলো :

  • প্রথমতো রসুন অনেক ভাবেই খাওয়া যায় । তবে এর মধ্যে সব থেকে ভালো এবং কার্যকরী হলো সকাল বেলা খালি পেটে রসুন খাওয়া ।
  • আপনি খালি পেটে রসুনের রস খেতে পারেন
  • রসুন চিবিয়ে খেতে পারেন
  • রসুন সেচে তা পানিতে চুবিয়ে রেখে সেই পানি সকালে খেতে পারেন
  • আপনি চাইলে রাতেও রসুন খেতে পারেন
  • তবে সকালে রসুন খেলে এর উপকারিতা অনেক বেশি পাওয়া যায় কারন সকাল বেলা আপনার পেট খালি থাকে তাই দ্রুত ফলাফল পাওয়া যায় ।
  • আপনি বিভিন্ন তরকারির সাথে রসুন খেতে পাড়েন । সব সময় চেষ্টা করবেন সকল ধরনের তরকারিতে রসুন ব্যাবহার করার কারন রসুন যেমন আপনার শরীলের জন্য উপকারি তেমনি খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি করতেও রসুন অনেক উপকারি ।

কাঁচা রসুনের উপকারিতা

রসুনের উপকারিতা অনেক। প্রতি ১০০ গ্রাম কাচা রসুনে বিদ্যমান শর্করা, প্রোটিন, স্নেহ পদার্থ, চিনি, ভিটামিন এর পরিমান নিচে দেওয়া হলো;

  • রসুনে শর্করার পরিমান ৩৩.৬গ্রাম
  • চিনি রয়েছে ১গ্রাম মাত্র
  • ৬.৩৬ গ্রাম প্রটিন রয়েছে ১০০ গ্রাম রসুনে
  • ক্যালসিয়াম রয়েছে ১৮১ মিগ্রাম
  • বাতের যন্ত্রণা দূর করার জন্য রসুন তেলের সাথে মিশিয়ে আগুনে ঘরম করে মালিশ করলে দ্রুত ফলাফল পাওয়া যায়।
  • এছাড়াও আপনার যদি বুকে কফ জমে যায় তাহলে আপনি শরিষার তেল দিয়ে রসুন গরম করে সেই তেল বুকে দিলে আপনার বুকের কফ দূর হয়ে যাবে ইংশাআল্লাহ

  • পেটে ক্রিমি হলে কি করবেন : আপনার পেটে যদি ক্রিমির আক্রমণ বেড়ে যায় তাহলে প্রতিদিন খালি পেটে ২-৩ চামুচ করে রসুনের রস খেতে পারেন। তাহলে সাত দিনের মধ্যে ক্রিমির আক্রমণ থেকে বেচে যাবেন।

  • বিভিন্ন সময় আপনার গলা ব্যথা করে, ঘা , টনসিলের সমস্যা দেখা দেয়। এই রোগ থেকে মুক্তি পেতে চাইলে আপনাকে রসুনের ঔষুধি গুণ সম্পর্কে জানতে হবে।

  • ১ লিটার পরিমান পানির রস যদি ৫০ গ্রাম রসুন দিয়ে গরম করা হয়। অবশ্যই রসুনকে ভালো করে সেচে নিতে হবে। তার পর সেই রসুন যখন জাল হবে সেখান থেকে বাষ্পীভূত হয়ে দোয়া উরে যাবে আর সেই বাষ্পকে আমরা গলায় দিলে আমাদে এই রোগ থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করবে ।

রসুনের ইংরেজি কি

রসুনের ইংরেজি নাম হলো গার্লিক বা garlic

রসুনের উপকারিতা কি

রসুন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল, বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ কারন রসুনে রয়েছে অ্যালিসিন নামক একটি প্রধান যৌগ।


রসুনে রয়েছে বি১, বি৬ আরো রয়েছে সেলেনিয়াম এবং লবন।

  • যারা বাতের ব্যথায় ভুগছেন তাদের জন্য রসুন অনেক উপকারী কারন রসুনে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি যা বাতের ব্যথার জন্য মারাত্মক ঔষধ।
  • রসুনের অন্যান্য মিনারেল রোগ প্রতিরোধ হ্মমতা বৃদ্ধি করতে দারুণ ভাবে কাজ করে এবং সংক্রমণ প্রতিরোধ করতেও ব্যাপকভাবে সহযোগিতা করে থাকে।
  • ক্যান্সার হওয়ার ঝুকি অনেকটাই কম থাকে যদি আপনি নিয়মিত রসুন খেতে পারেন৷

রাতে রসুন খেলে কি হয়


রাতে রসুন খাওয়ার উপকারিতা বা রসুনের উপকারিতা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে অপরিসীম।

ওজন কমানোর জন্য রসুন :

  • ওজন কমানোর জন্য আপনি প্রতিদিন রাতে অথবা সকালে রসুন খেতে পারেন । আমাদের শরীলে যে সমস্ত টক্সিন এবং ক্ষতিকারক পদার্থ থাকে তা রসুন খুব সহজেই বের করে দিতে পারে ।

  • রসুনে রয়েছে ফ্যাট বর্নিং কম্পাউন্ড যা শরীলের অতিরিক্ত জমে থাকা চর্বিগুলোকে কমিয়ে দেয় এবং চর্বি জমতে দেয় না ।

  • আমরা ফুসফুসের সংক্রমণের কারনে অনেক সময় ঠিক মতো নিশ্বাস নিতে পারি না, যার ফলে আমাদের মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে।

  • এর জন্য রসুন খেলে এটি সাথে সাথেই ফুসফুসের সমস্যাজনিত রোগের বিরুদ্ধে কাজ করকে শুরু করে দেয়।

  • আমাদের শরীলের হাড় শক্ত না হওয়ার কারন হলো

ইস্ট্রোজেন:

এই ইস্ট্রোজেনের কারনে আমাদের হার দুর্বল হয়ে যায়। পুরুষদের এই সমস্যা কম দেখা দিলেও মহিলাদের ক্ষেত্রে একটু বেশি দেখা যায়।

আর রসুন কেনো আপনার হাড় শক্ত করতে সহায়তা করবে? কারন হলো রসুনে রয়েছে হার শক্ত করার ইস্ট্রোজেন যা আপনার হাড়ের দুর্বলতা দূর করে দেয়।

Leave a Comment